সোমবার, ২৩ নভেম্বর ২০২০, ১০:১৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
কুষ্টিয়ায় শিশু ধর্ষণ মামলায় কিশোর গ্রেফতার মাথাভাঙ্গা নদীর তীর থেকে দৌলতপুরের পিপুলবাড়িয়ার নিখোঁজ কলেজ ছাত্রীর কঙ্কাল উদ্ধার কাউন্সিলর থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান হলেন নিলুফা ইয়াসমিন স্কুল শিক্ষার্থীকে মারধরের ভিডিও ভাইরাল, গ্রেফতার ৪কিশোরের জামিন  কুষ্টিয়ায় স্কপের প্রতিনিধি সভা অনুষ্ঠিত কুষ্টিয়ায় কিশোর গ্যাং কর্তৃৃক স্কুল শিক্ষার্থীকে মারধরের ভিডিও ভাইরাল কুষ্টিয়া অসুস্থ বি এন পি নেতার পাশে তারেক রহমান দৌলতপুরে অসহায় নারীদেরকে স্বাবলম্বী করতে কাজ করছে অগ্রযাত্রায় মানব কল্যাণ ফাউন্ডেশন দৌলতপুরে সড়ক দূর্ঘটনায় শান্ত নামে এক যুবক নিহত কুষ্টিয়া মিরপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় ১ জনের মৃত্যু,আহত ৬

দৌলতপুরে পদ্মায় অবৈধভাবে বালি উত্তোলন, হুমকির মুখে নদী রক্ষা বাধসহ কয়েক হাজার পরিবার

বিশেষ প্রতিনিধি: / ১৯২ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৫ আগস্ট, ২০২০, ১২:৪৯ অপরাহ্ন




কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে পদ্মা নদী থেকে অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের মহা উৎসব চলছে। স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল প্রতিদিন অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। অপরিকল্পিতভাবে এই বালি উত্তোলনের ফলে হুমকির মুখে পড়েছে রায়টা-মহিষকুন্ডি বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ ও ফিলিপনগর নদী রক্ষা বøক এবং বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ হাজার হাজার মানুষের বসত বাড়ি। এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে বালি উত্তোলন বন্ধে একাধিকবার স্থানীয় প্রশাসনকে অনুরোধ করা হলেও বালি উত্তোলন বন্ধে প্রশাসন কোন উদ্যোগ গ্রহন করা হয়নি। ফলে বালি ব্যবসায়ীরা দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন।

 

 

এলাকাবাসীর অভিযোগ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করেই স্থানীয় প্রভাবশালীরা অবৈধ এ বালি উত্তোলন ব্যবসা চালিয়ে আসছেন। বালি উত্তোলন বন্ধে কোন পদক্ষেপ গ্রহন না নেয়ায় ফিলিপনগর আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে মঙ্গলবার মানববন্ধন ও সংবাদ সম্বেলন করে দৌলতপুরের ইউএনও শারমিন আক্তারের অপসারন ও অবিলম্বে বালি উত্তোলন বন্ধের দাবী করেছেন।

 

 

 

 

স্থানীয়রা জানান, ফিলিপনগর এলাকার মামুন, রাজিব, নজু, বাদশাসহ বেশ কয়েকজন স্থানীয় প্রভাবশালী লোকজন ফিলিপনগর নদী রক্ষা বাধের নিচে পদ্মা নদী থেকে প্রতিদিন ট্রলি ট্রলি বালি অবৈধভাবে উত্তোলন করে চলেছে। এ বিষয়ে একাধিকবার প্রশাসনকে অবহিত করা হলে তারা কোন পদক্ষেপ গ্রহন করছেন না। ফলে ওই প্রভাবশালী মহল পদ্মা নদী থেকে অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের কাজ অব্যাহত রেখেছে। অবিলম্বে এই ধরনের অবৈধ বালি উত্তোলন বন্ধ না হলে মহিষকুন্ডি-রায়টা নদী রক্ষা বাধসহ ফিলিপনগর নদী রক্ষা বøক, ফিলিপনগর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ফিলিপনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, ইসলামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ইসলামপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, পিএসএস মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ফিলিপনগর ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্সসহ কয়েক গ্রামের হাজার হাজার মানুষের বাড়িঘর নদী ভাঙ্গনে বিলীন হওয়ার আশংকা রয়েছে। এলাকাবাসীর বিরোধীতা সত্তেও অদৃশ্য শক্তির প্রভাব খাটিয়ে বালি ব্যবসায়ীরা কিভাবে এই বালি ব্যবসা করে আসছেন তা নিয়ে স্থানীয় প্রশাসনের দিকে অভিযোগ ছুড়ে দেন তারা।

 

 

 

 

এলাকাবাসীর অভিযোগ, প্রশাসন কমিশন নেয়ার কারনে কোন পদক্ষেপ গ্রহন করছেন না। সরেজমিন নদী ঘুরে বালি উত্তোলনের সত্যতাও পাওয়া গেছে। পদ্মা নদী থেকে প্রতিদিন নির্বিগ্নে বালি উত্তোলন করার ঘটনা দেখা গেছে। নদী থেকে বালি উত্তোলন করে নদীর পাড়ের স্তুপ করে রাখার চিত্র দেখা গেছে।

 

 

 

এদিকে অবৈধ বালি উত্তোলন বন্ধে মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় ফিলিপনগর আবেদের ঘাট এলাকায় ফিলিপনগর আওয়ামীলীগ মানববন্ধন ও সংবাদ সম্বেলন করেছেন। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বারবার অনুরোধ করার পরেও বালি উত্তোলন বন্ধে দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শারমিন আক্তার কোন পদক্ষেপ গ্রহন না করে এলাকার হাজার হাজার পরিবারকে হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছে। তাই ইউএনও শারমিন আক্তারের অপসারনসহ অবৈধ বালি উত্তোলন বন্ধ করতে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়। এ সময় বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা হায়দার আলী, আওয়ামীলীগ নেতা হাসিনুর রহমান, সামসুল আলম, নাসির উদ্দীণ, মাহবুব মাষ্টার, শিপুল হাজি, ওয়াসীম কবিরাজ প্রমুখ।

 

অবৈধ বালি উত্তোলন বন্ধে মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় ফিলিপনগর আবেদের ঘাট এলাকায় ফিলিপনগর আওয়ামীলীগ মানববন্ধন ও সংবাদ সম্বেলন করে

 

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার ফিলিপনগর গ্রামের বাসিন্দা হায়দার আলী বলেন, স্থানীয় কিছু ব্যাক্তি দীর্ঘ দিন ধরে এই বালি উত্তোলনের কারবার চালিয়ে আসছেন। বারবার প্রশাসনকে অনুরোধ করা হলেও অদৃশ্য কারণে কোন পদক্ষেপ গ্রহন করেননি।

 

 

 

দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শারমিন আক্তার বলেন, করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় প্রায় এক মাসের অধিক সময় দায়িত্ব পালন থেকে বিরত ছিলাম। এ সময় দ্বায়িত্ব পালন করেছেন এসিল্যান্ড। বালি উত্তোলনের বিষয়ে কোন পদক্ষেপ গ্রহন না করার অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, সম্প্রতি দুইবার এসিল্যান্ডের নেতৃত্বে নদীতে ভ্রাম্যমান অভিযান চালানো হয়েছে। স্থানীয়দের অসহযোগিতার কারনে অভিযানের খবর পেয়ে বালি উত্তোলনকারীরা নদী থেকে পালিয়ে যাওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া যায়নি।

 






এ জাতীয় আরো খবর ....




মাথাভাঙ্গা নদীর তীরে মানুষের ভীড়

Archives

MonTueWedThuFriSatSun
      1
9101112131415
16171819202122
23242526272829
30      
   1234
262728293031 
       
 123456
282930    
       
     12
10111213141516
31      
  12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  
       
891011121314
2930     
       
    123
45678910
11121314151617
18192021222324
       
  12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
27282930   
       
      1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031     
     12
3456789
10111213141516
17181920212223
242526272829 
       
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
x
x